ভারতের সম্পদ – প্রশ্ন উত্তর | Bharoter Sompod – Question Answer

মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সুখবর ↓

WBP-CT-Banner_offer
bharoter-sompod
শ্রেণি – নবম | বিভাগ – ভূগোল | অধ্যায় – ভারতের সম্পদ | Bharoter Sompod (Chapter 7)

এই পর্বে রইল নবম শ্রেণির ভূগোল বিভাগের সপ্তম অধ্যায় – থেকে ভারতের সম্পদ সংক্রান্ত সম্পূর্ণ প্রশ্ন উত্তর আলোচনা।

সঠিক উত্তর নির্বাচন কর (MCQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ১]

1। ক্রায়োলাইট একপ্রকার-
a) সম্ভাব্য সম্পদ b) দুষ্প্রাপ্য সম্পদ c) চিরাচরিত সম্পদ d) কোনটিই নয়

উত্তর- ক্রায়োলাইট একপ্রকার- b) দুষ্প্রাপ্য সম্পদ।

2। লোকটাক জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি অবস্থিত-
a) মণিপুরে b) সিকিমে c) ওড়িশায় d) অরুণাচল প্রদেশে

উত্তর- গুজরাটে অবস্থিত ভারতের বৃহত্তম তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি হল- a) মণিপুরে।

3। ‘জ্ঞানই সকল সম্পদের সৃষ্টিকর্তা’ – এ কথা বলেছেন-
a) জিমারম্যান b) মিচেল c) মার্শাল d) অ্যাডাম স্মিথ

উত্তর- শ্রমিকের দক্ষতা হল- a) জিমারম্যান।

4। 1992 সালে বসুন্ধরা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল-
a) চেক প্রজাতন্ত্রে b) রিও ডি জেনিরোতে c) লন্ডনে d) মন্ট্রিলে

উত্তর- 1992 সালে বসুন্ধরা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল- b) রিও ডি জেনিরোতে।

5। বায়ুমণ্ডল যে ধরনের সম্পদ, তা হল-
a) জাতীয় b) ব্যাক্তিগত c) সামাজিক d) সর্বজনীন সম্পদ

উত্তর- বায়ুমণ্ডল যে ধরনের সম্পদ, তা হল- d) সর্বজনীন সম্পদ।

6। তামিলনাড়ুর ‘মুপ্পান্ডল’ একটি বিখ্যাত –
a) ভূ -তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র b) সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র c) বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র d) পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র

উত্তর- তামিলনাড়ুর ‘মুপ্পান্ডল’ একটি বিখ্যাত c) বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র।

7। পরিবেশবান্ধব তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়তে কোন্‌ শ্রেণির কয়লা প্রয়োজন?
a) পিট b) লিগনাইট c) বিটুমিনাস d) অ্যানথ্রাসাইট

উত্তর- পরিবেশবান্ধব তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়তে কোন্‌ শ্রেণির কয়লা প্রয়োজন- d) অ্যানথ্রাসাইট।

8। মানবিক সম্পদের উদাহরণ হল-
a) সূর্যকিরণ b) শ্রমিক c) জল d) মৃত্তিকা

উত্তর- মানবিক সম্পদের উদাহরণ হল- b) শ্রমিক।

9। মানবিক সম্পদের একটি উদাহরণ হল-
a) সূর্যালোক b) প্রাকৃতিক গ্যাস c) দক্ষতা d) ভূ – তাপ শক্তি

উত্তর- মানবিক সম্পদের একটি উদাহরণ হল- c) দক্ষতা।

10। NTPC সংস্থাটি –
a) জলবিদ্যুৎ b) পারমাণবিক বিদ্যুৎ c) তাপবিদ্যুৎ d) সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত

উত্তর- NTPC সংস্থাটি c) তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত।

আরো পড়ো → বিশ শতকে ইউরোপ অধ্যায়ের প্রশ্ন উত্তর

সংক্ষিপ্ত উত্তরভিত্তিক প্রশ্ন (SAQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ২]

1। সাগর সম্রাট ও সাগর বিকাশ কি?
উত্তর- সাগর সম্রাট ও সাগর বিকাশ হল তৈলকূপ খননকারী ভাসমান প্ল্যাটফর্ম, যার সাহায্যে সমুদ্রগর্ভ থেকে তেল উত্তোলন করা হয়। মুম্বইয়ের 173 কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে আরব সাগরে প্রায় 2000 বর্গ কিমি অঞ্চলে অবস্থিত বম্বে হাই তৈলখনি থেকে খনিজ তেল উত্তোলনে সাগর সম্রাট ও সাগর বিকাশের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে।

2। কোনো একটি নিরপেক্ষ সামগ্রীর সম্পদ হয়ে ওঠার শর্তগুলি উল্লেখ কর।
উত্তর- কোনো একটি নিরপেক্ষ সামগ্রীর সম্পদ হয়ে ওঠার জন্য যে বিশেষ গুণ বা শর্তগুলি আবশ্যিক থাকা দরকার। ক) কার্যকারিতা খ) উপযোগিতা গ) মানুষের প্রয়োজনীয়তা ও অভাব মোচন করতে পারে।

3। জলবিদ্যুৎ শক্তিকে “সাদা কয়লা” বলা হয় কেন?
উত্তর- কয়লা থেকে যেমন তাপবিদ্যুৎ শক্তি উৎপাদন করা হয়, তেমনি জল থেকে জলবিদ্যুৎ শক্তি উৎপাদন করা হয়। কেবল কয়লার রং কালো এবং জল স্বচ্ছ বা বর্ণহীন, তাই কয়লার সঙ্গে তুলনা করে, জলবিদ্যুৎ শক্তিকে “সাদা কয়লা” বলা হয়।

4। ফ্যান্টম পাইল কি?
উত্তর- পৃথিবীতে পদার্থের সঞ্চয় নির্দিষ্ট হলেও কার্যকারিতা নির্দিষ্ট নয়। তাই একদিকে সম্পদের ওজন ও আয়তনগত সংকোচন ও অপরদিকে সম্পদের প্রকৃত ক্ষয়ের ক্ষতিপূরণকে ফ্যান্টম পাইল বলে।
ধরা যাক, পূর্ব 1 টন লোহা গলাতে 2 টন কয়লা লাগত, কিন্তু বর্তমানে কয়লা সেখানে 1 টন এরও কম লাগে, অর্থাৎ কয়লার ব্যবহারের কার্যকারিতা বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে এখন 1 টন কয়লা বাস্তবে অদৃশ্য থেকে যাবে। তাই ফ্যান্টম পাইল বাস্তবে না থাকলেও এর কার্যকারিতা রয়েছে।

আরো পড়ো → আবহমান কবিতার প্রশ্ন ও উত্তর

সংক্ষিপ্ত ব্যাখামূলক উত্তরভিত্তিক প্রশ্ন (SAQ)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ৩]

1। ভারতে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংখ্যা কম কেন?
উত্তর- ভারতে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের অন্তরায় হওয়ার জন্য বেশ কিছু কারণ রয়েছে, যথা –
ক) কাঁচামালের অপ্রাচুর্যতা – ভারতে একমাত্র ইউরেনিয়াম পাওয়া যায় যদুগোরায়, ফলে পারমাণবিক শক্তির প্রয়োজনীয় কাঁচামালের অপ্রাচুর্যতা রয়েছে।
খ) বিকল্প শক্তির প্রাধান্য – ভারতে প্রয়োজনীয় বিদ্যুতের চাহিদার প্রায় 80% মিটে যায়, জলবিদ্যুৎ ও তাপবিদ্যুৎ থেকে। ফলে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা তুলনামূলক কম।
গ) উন্নত প্রযুক্তিজনিত সমস্যা – পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন ও নিরাপদ ব্যবহারের জন্য আধুনিক প্রযুক্তির অভাব রয়েছে।

2। ‘জ্ঞান হল সম্পদের প্রকৃত জননী’ মিচেল এর ধারণাটি ব্যাখ্যা কর।
উত্তর- মানুষের চাহিদা, প্রয়োজনীয়তা, সাংস্কৃতিক স্তর, আর্থসামাজিক অবস্থা ও লক্ষ্যের উপর নির্ভর করে সম্পদ তৈরি ও ব্যবহার হয়ে থাকে। মানুষের শ্রম, বুদ্ধি, দক্ষতা, জ্ঞান, সামর্থ্য ও গবেষণা সম্পদের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে। মানুষের শ্রম, দক্ষতা, জ্ঞান যে কোন বস্তুকে সম্পদের পরিণত করে, স্থিতিশীলতা এবং দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারের উপায়কেও সুনিশ্চিত করতে পারে। একারণেই মিচেল, জ্ঞানকে সম্পদের প্রকৃত জননী হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন।

3। ‘তাপবিদ্যুতের তুলনায় জলবিদ্যুৎ পরিবেশমিত্র’ – কারণ ব্যখ্যা কর।
উত্তর- তাপবিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রধান উপাদান হল কয়লা। কয়লা পুড়িয়ে তাপবিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়, এই পদ্ধতিতে বহুল পরিমাণে পরিবেশের দূষণ ঘটে। কয়লা পোড়ানোর ধোঁয়া, ধূলিকণা, নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড ও অন্যান্য বিষাক্ত গ্যাস বাতাসে মিশ্রিত হয়। এছাড়া কয়লার ছাই মিশ্রিত অপরিশোধিত জল জলদূষণ ঘটায়।
অপরদিকে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রে মোটর বা টারবাইন এর সাহায্যে নদীর জলের প্রবল গতিকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়। এক্ষেত্রে বাঁধে নদীর জল সঞ্চয় করে রাখা ছাড়া সেভাবে পরিবেশের কোনোরূপ ক্ষয়ক্ষতি হয় না, তাই তাপবিদ্যুতের তুলনায় জলবিদ্যুৎ পরিবেশমিত্র।

আরো পড়ো → All summer in a day Question Answer

দীর্ঘ উত্তরধর্মী প্রশ্ন (LA)

[প্রতিটি প্রশ্নের প্রশ্নমান ৫]

1। সম্পদ সৃষ্টিতে প্রাকৃতিক ও মানবিক বাধাগুলি উল্লেখ করে, সম্পদ সৃষ্টিতে প্রকৃতি, মানুষ ও সংস্কৃতির ভূমিকা বিশ্লেষণ করো।
উত্তর-
• সম্পদ সৃষ্টিতে প্রাকৃতিক বাধা – প্রকৃতির আলো, বাতাস, জল, জীবজগত ইত্যাদি উপকরণ সম্পদের সম্ভাব্য আধার হলেও সম্পদ সৃষ্টির ক্ষেত্রে এগুলিই অনেক সময় বাধার সৃষ্টি করে। মরুভূমি, অনুর্বর মৃত্তিকা, বন্যা, খরা, ভূমিকম্প ইত্যাদি প্রাকৃতিক ঘটনাগুলি সম্পদ সৃষ্টিতে প্রতিবন্ধকতা হয়ে ওঠে।
• সম্পদ সৃষ্টিতে মানবিক বাধা – মানুষের অজ্ঞতা, নিরক্ষরতা, কুসংস্কার, বুদ্ধিহীনতা ইত্যাদি মানবিক বিষয়গুলি সম্পদ সৃষ্টির ক্ষেত্রে বাধার সৃষ্টি করে।
• সম্পদ সৃষ্টিতে প্রকৃতি, মানুষ ও সংস্কৃতির ভূমিকা নিম্নলিখিত
• প্রকৃতি – মানুষের হস্তক্ষেপ ব্যতীত পৃথিবীতে সৃষ্ট যেকোন কিছুই প্রকৃতির অন্তর্গত। বিভিন্ন বস্তু বা পদার্থের অফুরন্ত ভাণ্ডার হল এই প্রকৃতি। প্রকৃতি হল সম্পদের ধারক ও বাহক। প্রকৃতিতে দুইধরণের সম্পদ পাওয়া যায়, যথা – পুনর্ভব ও অপুনর্ভব সম্পদ।
• মানুষ – মানুষ হল সম্পদ সৃষ্টির দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। মানুষ তার কর্মদক্ষতা, চিন্তাবুদ্ধি অ জ্ঞানের সাহায্যে প্রকৃতির বিভিন্ন উপাদানগুলিকে সম্পদে পরিণত করে। সম্পদ সৃষ্টিতে মানুষ দ্বৈত ভূমিকা পালন করে, যথা – সম্পদের সৃষ্টিকারী এবং সম্পদের ভোগকারী।
• সংস্কৃতি – সম্পদ সৃষ্টির একটি গতিশীল উপাদান হল সংস্কৃতি, অধ্যাপক হ্যামিলটনের মতে বিজ্ঞানচেতনা, সাংস্কৃতিক চিন্তাধারা সম্পদ সৃষ্টিতে সহয়তা করে।

2। ভারতে কয়লা উত্তলনের সমস্যাগুলি কি কি?
উত্তর- ভারতে কয়লা উত্তলনের সমস্যাগুলি নিম্নলিখিত:
• ভারতের কয়লা খুব উন্নতমানের নয়। ভারতে গন্ডয়ানা যুগের মধ্যম শ্রেনির বিটুমিনাস কয়লা এবং টারশিয়ারি যুগের নিম্ন শ্রেণির লিগনাইট কয়লা সঞ্চিত রয়েছে।
• প্রয়োজনীয় পরিবহন ব্যবস্থার অভাব রয়েছে। খনি থেকে বাজার বা শিল্পকেন্দ্রে কয়লা পাঠানোর মত প্রয়োজনীয় রেল ওয়াগন সবসময় পাওয়া যায় না।
• সাধারণ কয়লা থেকে কোক কয়লা বা উপজাত দ্রব্য তৈরির উপযুক্ত ব্যবস্থাপনা নেই।
• আধুনিক প্রযুক্তি ও যন্ত্রপাতির অভাবে খনি থেকে কয়লা উত্তোলন যথেষ্ট কষ্টসাধ্য এবং অনেকক্ষেত্রেই সম্পূর্ণ উত্তোলন সম্ভব হয়না।
• ভারতের বেশিরভাগ কয়লা অ-কোকিং যা ধাতু নিষ্কাশনের জন্য অনুপযোগী। কয়লায় ছাই-এর পরিমাণ বেশি, প্রায় 20-35%।
• কয়লার অসম বণ্টন রয়েছে। ভারতে বেশিরভাগ কয়লা সঞ্চিত রয়েছে, দেশের উত্তর পূর্বাংশের রাজ্যগুলিতে। দেশের পশ্চিম ও দক্ষিণাংশে কয়লার পরিমাণ কম বা নেই বললেই চলে, ফলে দেশে নানা স্থানে অসম শিল্পোন্নতি দেখা যায়।
• কয়লা দহনের ফলে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে, ফলে ভারত সরকার কয়লার পরিবরতে অপ্রচলিত শক্তি ব্যবহারে বেশি গুরুত্ব প্রদান কছে, তাই কয়লার চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় উত্তোলনও হ্রাস পাচ্ছে।

আরো পড়ো → দুর্যোগ ও বিপর্যয় অধ্যায়ের প্রশ্ন উত্তর

WBPorashona.com-এর পোস্ট আপডেট নিয়মিত পাবার জন্য –


আমাদের কাজ থেকে উপকৃত হলে এই লেখাটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল।

WBP-YT-Banner